ঢাকা ০৭:১৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৮ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

গাংনীর ঢেপায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের আহত-১২

ডেস্ক রির্পোটারঃ
  • আপডেট সময় : ১০:৪৯:৩১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪ ১৩৫ বার পড়া হয়েছে

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ঢেপা গ্রামে জমির কলমি শাকের বীজ মাড়ায় করার শ্রমিক খরচ নিয়ে মালিক ও শ্রমিক পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে নারী সহ উভয় পক্ষের ১৩ জন আহত হয়েছে।

আহতদের মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আজ সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।  আহতরা হলো, মালিক পক্ষের জেলেহার মন্ডলের ছেলে মজিবর (৫০), নুর ইসলামের ছেলে আশাদুল (৪৮), আশাদুলের ছেলে নয়ন (২০), জেলেহার মন্ডলের ছেলে নুর ইসলাম (৬৪), মজিবরের ছেলে আলামিন (২৬) ও বায়জিদ আলীর ছেলে ফরজ আলী (৩৫)।  শ্রমিক পক্ষের আহতরা হলো, রেজাউল ইসলামের ছেলে হযরত আলী (৬০), উসমানের ছেলে স্বপন (২৩), রেজাউলের ছেলে উসমান (৫০) ও হুমায়ন (৪০), মৃত খুকাই শেখের ছেলে রেজাউল (৮৮), রেজাউল হকের স্ত্রী হালিমা খাতুন (৮৪)।

তাদের বাড়ি ঢেপা গ্রামের পাঙাসী পাড়ায়। আহতদের সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার মজিবরের ১৩ কাঠা জমির কলমি শাকের বীজ মাড়ানোর জন্য চুক্তি নেয় রেজাউল হকরা। বিঘা প্রতি জমিতে আড়াই হাজার টাকার চুক্তি হয়। শ্রমিকের টাকা পরিশোধ করতে গিয়ে মজিবর অভিযোগ করেন মাড়াই খরচ বেশি নেয়া হচ্ছে। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। আজ সকালে গ্রামের একটি চায়ের দোকানে উভয় পক্ষ চা পান করছিলো। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে আবারও বাকবিতন্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে লাঠিশোঠা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে উভয় পক্ষ। এতে দু’পক্ষের ১৩ জন আহত হয়। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম জানান, এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কেউ থানায় লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

গাংনীর ঢেপায় তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে উভয় পক্ষের আহত-১২

আপডেট সময় : ১০:৪৯:৩১ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ৩১ জানুয়ারী ২০২৪

মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ঢেপা গ্রামে জমির কলমি শাকের বীজ মাড়ায় করার শ্রমিক খরচ নিয়ে মালিক ও শ্রমিক পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটেছে। এতে নারী সহ উভয় পক্ষের ১৩ জন আহত হয়েছে।

আহতদের মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। আজ সকাল সাড়ে ৮ টার দিকে এ সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।  আহতরা হলো, মালিক পক্ষের জেলেহার মন্ডলের ছেলে মজিবর (৫০), নুর ইসলামের ছেলে আশাদুল (৪৮), আশাদুলের ছেলে নয়ন (২০), জেলেহার মন্ডলের ছেলে নুর ইসলাম (৬৪), মজিবরের ছেলে আলামিন (২৬) ও বায়জিদ আলীর ছেলে ফরজ আলী (৩৫)।  শ্রমিক পক্ষের আহতরা হলো, রেজাউল ইসলামের ছেলে হযরত আলী (৬০), উসমানের ছেলে স্বপন (২৩), রেজাউলের ছেলে উসমান (৫০) ও হুমায়ন (৪০), মৃত খুকাই শেখের ছেলে রেজাউল (৮৮), রেজাউল হকের স্ত্রী হালিমা খাতুন (৮৪)।

তাদের বাড়ি ঢেপা গ্রামের পাঙাসী পাড়ায়। আহতদের সূত্রে জানা গেছে, মঙ্গলবার মজিবরের ১৩ কাঠা জমির কলমি শাকের বীজ মাড়ানোর জন্য চুক্তি নেয় রেজাউল হকরা। বিঘা প্রতি জমিতে আড়াই হাজার টাকার চুক্তি হয়। শ্রমিকের টাকা পরিশোধ করতে গিয়ে মজিবর অভিযোগ করেন মাড়াই খরচ বেশি নেয়া হচ্ছে। এ নিয়ে উভয়ের মধ্যে কথা কাটাকাটি হয়। আজ সকালে গ্রামের একটি চায়ের দোকানে উভয় পক্ষ চা পান করছিলো। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে আবারও বাকবিতন্ডা শুরু হয়। এক পর্যায়ে লাঠিশোঠা ও দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে উভয় পক্ষ। এতে দু’পক্ষের ১৩ জন আহত হয়। স্থানীয়রা আহতদের উদ্ধার করে মেহেরপুর জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করে।

গাংনী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) তাজুল ইসলাম জানান, এ ব্যাপারে এখন পর্যন্ত কেউ থানায় লিখিত অভিযোগ করেননি। অভিযোগ পেলে আইনগত ব্যবস্থা নেয়া হবে।