ঢাকা ০২:১৫ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মেহেরপুরে অটোচালক হত্যার প্রধান আসামির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট সময় : ১২:০৯:১৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ জুন ২০২৩ ২৯০ বার পড়া হয়েছে

মেহেরপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে হোটেল এজাজে অটোচালক আব্দুর রহমান হত্যার প্রধান আসামি মেহেরপুর সদর উপজেলা উজলপুর গ্রামের নাহিদ হাসানের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ।

জানা গেছে আব্দুর রহমান হত্যাকাণ্ডের দুই দিন পূর্বে মেহেরপুর শহরের কাঁসারী বাজার এলাকার মেহেরপুর ডেকোরেটর থেকে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হালখাতার অনুষ্ঠান করবে এমন কথা বলে ডেকোরেটার থেকে বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যায়। একই সাথে সাগর নামের এক ব্যক্তির নিকট থেকে সাউন্ড বক্স নিয়ে যায়। পরে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর মেহেরপুর ডেকোরেটরের মালিকসহ সাউন্ড বক্সের মালিক তাকে খোঁজাখুঁজি করে তাদের মালামাল উদ্ধার করতে পারেনি।

সদর উপজেলার উজলপুর গ্রামের বাসিন্দা আলমগীর বাদশা ছেলে নাহিদ হাসান সম্পর্কে জানতে গিয়ে এ ধরনের অসংখ্য অভিযোগ পাওয়া যায়। এর কয়দিন পূর্বে মেহেরপুর শহরের এক ঠিকাদারের কাছ থেকে কৌশলে লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে কেটে পড়ে। সর্বশেষ শোলমারি গ্রামের আব্দুর রহমানের ইজিবাইক ভাড়া করে ইজিবাইক ছিনতাই করার লক্ষ্যে শহরের হোটেল বাজার এলাকায় এজাজ হোটেলে আব্দুর রহমানকে জবাই করে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে ইজিবাইক নিয়ে পালিয়ে যায়।

পুলিশ ১২ ঘণ্টার মধ্যে আব্দুর রহমান হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ দুজনকে গ্রেপ্তার করার পাশাপাশি নিহত রহমানের ইজিবাইক এবং মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

মেহেরপুরে অটোচালক হত্যার প্রধান আসামির বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ

আপডেট সময় : ১২:০৯:১৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৩ জুন ২০২৩

মেহেরপুর শহরের প্রাণকেন্দ্রে হোটেল এজাজে অটোচালক আব্দুর রহমান হত্যার প্রধান আসামি মেহেরপুর সদর উপজেলা উজলপুর গ্রামের নাহিদ হাসানের বিরুদ্ধে নানা অভিযোগ ।

জানা গেছে আব্দুর রহমান হত্যাকাণ্ডের দুই দিন পূর্বে মেহেরপুর শহরের কাঁসারী বাজার এলাকার মেহেরপুর ডেকোরেটর থেকে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হালখাতার অনুষ্ঠান করবে এমন কথা বলে ডেকোরেটার থেকে বিভিন্ন মালামাল নিয়ে যায়। একই সাথে সাগর নামের এক ব্যক্তির নিকট থেকে সাউন্ড বক্স নিয়ে যায়। পরে হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার বিষয়টি জানাজানি হওয়ার পর মেহেরপুর ডেকোরেটরের মালিকসহ সাউন্ড বক্সের মালিক তাকে খোঁজাখুঁজি করে তাদের মালামাল উদ্ধার করতে পারেনি।

সদর উপজেলার উজলপুর গ্রামের বাসিন্দা আলমগীর বাদশা ছেলে নাহিদ হাসান সম্পর্কে জানতে গিয়ে এ ধরনের অসংখ্য অভিযোগ পাওয়া যায়। এর কয়দিন পূর্বে মেহেরপুর শহরের এক ঠিকাদারের কাছ থেকে কৌশলে লক্ষাধিক টাকার মালামাল নিয়ে কেটে পড়ে। সর্বশেষ শোলমারি গ্রামের আব্দুর রহমানের ইজিবাইক ভাড়া করে ইজিবাইক ছিনতাই করার লক্ষ্যে শহরের হোটেল বাজার এলাকায় এজাজ হোটেলে আব্দুর রহমানকে জবাই করে হত্যা করে লাশ ফেলে রেখে ইজিবাইক নিয়ে পালিয়ে যায়।

পুলিশ ১২ ঘণ্টার মধ্যে আব্দুর রহমান হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত থাকার অভিযোগ দুজনকে গ্রেপ্তার করার পাশাপাশি নিহত রহমানের ইজিবাইক এবং মোবাইল ফোনটি উদ্ধার করেন।