ঢাকা ০২:০৮ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মেহেরপুরে দারুল উলুম কওমী মাদ্রাসার একটি কক্ষ থেকে শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

নিউজ ডেস্ক:
  • আপডেট সময় : ০১:০৩:৫৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৬ অগাস্ট ২০২৩ ৫৫৯ বার পড়া হয়েছে

মেহেরপুর সদর উপজেলার ঝাউবাড়িয়া দারুল উলুম কওমী মাদ্রাসার একটি কক্ষ থেকে আলী আজগর (১৩) নামে এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। শনিবার (২৬ আগস্ট) দুপুরে মাদ্রাসার ২ নম্বর কক্ষ থেকে তার লাশটি উদ্ধার করা হয়। আলী আজগর ওই মাদ্রাসার পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র ও উজলপুর গ্রামস্থ কুঠিপাড়ার টুটুল হোসেনের ছেলে।

মেহেরপুর সদর থানা অফিসার ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সহপাঠী সাফায়েত জানায়, আলী আজগরের সাথে সে একই রুমে থাকতো। আলী আজগর প্রায় সময় বলতো মাদ্রাসায় লেখাপড়া করতে তার ভালো লাগে না। অথচ তার পিতা তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করেই তাকে মাদ্রাসায় লেখাপড়া করাতো। শনিবার (২৬ আগস্ট) সকালে আলী আজগরের পিতা মাদ্রাসায় এসে তাকে মারধর করে গেছে। তারপরেও সে পরীক্ষা দিয়ে এসে খাবার খেয়ে বসবাসের ঘরের সামনে গামছা হাতে বসে ছিল।

দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে ঘরের ভেতর থেকে ছিটকানি দেওয়া দেখে তাকে ডাকাডাকি শুরু করলে ভেতর থেকে কোন সাড়াশব্দ না পেয়ে জানালায় উঁকি দিয়ে তাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। পরে বিষয়টি শ্রেণী শিক্ষককে জানাই। শিক্ষক পুলিশে খবর দিলে ঘরের তালা ভেঙে তার মরদেহ উদ্ধার করেন।

মেহেরপুর সদর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম জানান, শিক্ষার্থীর পিতা তাকে লেখাপড়ার জন্য চাপ দেয় ও বকাবকি করে। সেই কারণে পিতার উপর অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। কোনো অভিযোগ না থাকায় নিহতের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

মেহেরপুরে দারুল উলুম কওমী মাদ্রাসার একটি কক্ষ থেকে শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার

আপডেট সময় : ০১:০৩:৫৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৬ অগাস্ট ২০২৩

মেহেরপুর সদর উপজেলার ঝাউবাড়িয়া দারুল উলুম কওমী মাদ্রাসার একটি কক্ষ থেকে আলী আজগর (১৩) নামে এক শিক্ষার্থীর ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করেছে থানা পুলিশ। শনিবার (২৬ আগস্ট) দুপুরে মাদ্রাসার ২ নম্বর কক্ষ থেকে তার লাশটি উদ্ধার করা হয়। আলী আজগর ওই মাদ্রাসার পঞ্চম শ্রেণীর ছাত্র ও উজলপুর গ্রামস্থ কুঠিপাড়ার টুটুল হোসেনের ছেলে।

মেহেরপুর সদর থানা অফিসার ইনচার্জ সাইফুল ইসলাম বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

সহপাঠী সাফায়েত জানায়, আলী আজগরের সাথে সে একই রুমে থাকতো। আলী আজগর প্রায় সময় বলতো মাদ্রাসায় লেখাপড়া করতে তার ভালো লাগে না। অথচ তার পিতা তার ইচ্ছার বিরুদ্ধে জোর করেই তাকে মাদ্রাসায় লেখাপড়া করাতো। শনিবার (২৬ আগস্ট) সকালে আলী আজগরের পিতা মাদ্রাসায় এসে তাকে মারধর করে গেছে। তারপরেও সে পরীক্ষা দিয়ে এসে খাবার খেয়ে বসবাসের ঘরের সামনে গামছা হাতে বসে ছিল।

দুপুর সাড়ে ১২ টার দিকে ঘরের ভেতর থেকে ছিটকানি দেওয়া দেখে তাকে ডাকাডাকি শুরু করলে ভেতর থেকে কোন সাড়াশব্দ না পেয়ে জানালায় উঁকি দিয়ে তাকে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখতে পায়। পরে বিষয়টি শ্রেণী শিক্ষককে জানাই। শিক্ষক পুলিশে খবর দিলে ঘরের তালা ভেঙে তার মরদেহ উদ্ধার করেন।

মেহেরপুর সদর থানা অফিসার ইনচার্জ (ওসি) সাইফুল ইসলাম জানান, শিক্ষার্থীর পিতা তাকে লেখাপড়ার জন্য চাপ দেয় ও বকাবকি করে। সেই কারণে পিতার উপর অভিমান করে আত্মহত্যা করেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। কোনো অভিযোগ না থাকায় নিহতের লাশ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা।