ঢাকা ১০:৩০ অপরাহ্ন, শনিবার, ১৮ মে ২০২৪, ৪ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

মেহেরপুর আদালত থেকে : আসামি পলায়ন

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ
  • আপডেট সময় : ০৪:১৫:৪৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুলাই ২০২৩ ৩০৯ বার পড়া হয়েছে

মেহেরপুরে যুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত প্রাঙ্গণ থেকে কোর্ট হাজতে নেওয়ার পথে সাকিব (২২) নামের এক বিচারাধীন আসামির পালিয়ে যাওয়ার পর তাকে ধরে এনে পুলিশে সোপর্দ করেছে পরিবার। সাকিব মেহেরপুর পৌর এলাকার নতুন পাড়ার আনারুল ইসলামের ছেলে। কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক মানষ রঞ্জন দাস এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

৯ জুলাই দিবাগত রাতে জেলা পুলিশের নিয়মিত অভিযানে চুরি ও মাদকের মামলায় বিভিন্ন আসামিকে আটক করা হয়। আটক কৃতদের আজ ১০ জুলাই সোমবার মেহেরপুর জেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ২য় আদালতে উঠানো হলে বিচারক মোঃ তরিকুল ইসলাম তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণ নির্দেশ দেন। কাঠগড়া থেকে কোর্ট হাজতে নেওয়ার পথে ৯জন পুলিশ সদস্যের চোখ ফাকি দিয়ে আসামি সাকিব হ্যান্ডকাফ খুলে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় মেহেরপুর জেলা পুলিশের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়।

পুলিশের পক্ষ থেকে আসামি সাকিবের পরিবারের উপর চাপ প্রয়োগ করা হলে পলায়নের ৬ ঘন্টা পরে রাত সোয়া আটটার সময় আসামি সাকিব কে নিয়ে তার বড় ভাই রাকিব কোর্ট হাজতে উপস্থিত হন। আসামি সাকিবকে কোর্ট পুলিশ পরিদর্শকের কাছে সোপর্দ করে।

মেহেরপুরের পুলিশ সুপার রাফিউল আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,’ আসামি পালিয়ে গেছিলো ঘটনাটি সত্য, তবে তাকে পাওয়া গেছে, এখন কাস্টরিতে আছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

মেহেরপুর আদালত থেকে : আসামি পলায়ন

আপডেট সময় : ০৪:১৫:৪৫ অপরাহ্ন, সোমবার, ১০ জুলাই ২০২৩

মেহেরপুরে যুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালত প্রাঙ্গণ থেকে কোর্ট হাজতে নেওয়ার পথে সাকিব (২২) নামের এক বিচারাধীন আসামির পালিয়ে যাওয়ার পর তাকে ধরে এনে পুলিশে সোপর্দ করেছে পরিবার। সাকিব মেহেরপুর পৌর এলাকার নতুন পাড়ার আনারুল ইসলামের ছেলে। কোর্ট পুলিশ পরিদর্শক মানষ রঞ্জন দাস এই তথ্য নিশ্চিত করেছে।

৯ জুলাই দিবাগত রাতে জেলা পুলিশের নিয়মিত অভিযানে চুরি ও মাদকের মামলায় বিভিন্ন আসামিকে আটক করা হয়। আটক কৃতদের আজ ১০ জুলাই সোমবার মেহেরপুর জেলা সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট ২য় আদালতে উঠানো হলে বিচারক মোঃ তরিকুল ইসলাম তাদেরকে জেল হাজতে প্রেরণ নির্দেশ দেন। কাঠগড়া থেকে কোর্ট হাজতে নেওয়ার পথে ৯জন পুলিশ সদস্যের চোখ ফাকি দিয়ে আসামি সাকিব হ্যান্ডকাফ খুলে পালিয়ে যায়। এ ঘটনায় মেহেরপুর জেলা পুলিশের মধ্যে তোলপাড় শুরু হয়।

পুলিশের পক্ষ থেকে আসামি সাকিবের পরিবারের উপর চাপ প্রয়োগ করা হলে পলায়নের ৬ ঘন্টা পরে রাত সোয়া আটটার সময় আসামি সাকিব কে নিয়ে তার বড় ভাই রাকিব কোর্ট হাজতে উপস্থিত হন। আসামি সাকিবকে কোর্ট পুলিশ পরিদর্শকের কাছে সোপর্দ করে।

মেহেরপুরের পুলিশ সুপার রাফিউল আলম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন,’ আসামি পালিয়ে গেছিলো ঘটনাটি সত্য, তবে তাকে পাওয়া গেছে, এখন কাস্টরিতে আছে।