ঢাকা ১২:৫৯ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২২ মে ২০২৪, ৭ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

স্বপ্ন পূরণের আগেই লাশ হয়ে বাড়ি ফিরলেন প্রবাসী

নিজস্ব প্রতিবেদক :
  • আপডেট সময় : ০২:১২:৪৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুলাই ২০২৩ ১৯৮ বার পড়া হয়েছে

পৃথিবীর সকল মানুষই স্বপ্ন দেখে ভাল কিছু পাবার জন্য। কিন্তু এ স্বপ্ন কারাের পূরণ হয়। আবার কারাের স্বপ্ন স্বপ্নই রয়েছে যায়। এমন হতভাগা জীবন নিয়ে পৃথিবী থেকে চির বিদায় নিতে হলাে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ষােলটাকা ইউনিয়নের কাষ্টদহ গ্রামের যুবক শফিকুল ইসলামকে। শফিকুল কাষ্টদহ গ্রামের মৃত আজিজুল ইসলামের ছেলে।

সংসারের স্বচ্ছলতা আর মনে জমে থাকা বড় বড় স্বপ্ন নিয়ে প্রিয় জন্ম ভূমির মায়া ত্যাগ করে কর্মের তাগিদে যৌবন শুরুর দিকে গিয়েছিলেন কাতারে। সেখানে ১২ বছর কর্মজীবন কাটিয়ে স্বজনদের দেখতে বাড়ি আসেন। বাড়ি এসে পরিবারের সুখের আশায় আবারাে তিনি আফ্রিকাতে গিয়েছিলেন। আফ্রিকাতে নাগরিকত্ব পেতে ওই দেশে বিয়ে করেন। এর পর থেকে তার দিন ভাল যাচ্ছিল। কিন্তু ইদানিং স্ত্রীর সাথে তার দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। এর পর থেকে শফিকুলকে বিভিন্ন সময়ে জিম্মী করে অর্থ আদায় করা হতো।

পরিবারের লোকজন মুক্তিপণ দেয়ার পর শফিকুলকে দেশে ফিরে আসতে বলে এবং বিয়ে করে সংসার করতে বলতাে তার মা। মায়ের কথা মতে শফিকুল এর বিয়ের জন্য মেয়ে দেখাদেখির কাজও করে আসছিলেন তার গ্রামের বন্ধুরা। শফিকুলের স্বপ্ন ছিল,দেশে বিয়ে করে দেশেই কর্ম করে বাকী জীবনটা সুখে-শান্তিতে কাটাবাে। কিন্তু এ স্বপ্ন যেনাে তার স্বপ্নই রয়েছে গেলাে।

গত সোমবার তার সহ-কর্মীরা আফ্রিকাতে শফিকুলের হাত-পা বাঁধা গলা কাটা লাশ উদ্ধার করেন। সেই সাথে তার সহ-কর্মীরা বিষয়টি বাড়িতে জানান। খবর শুনে তার পরিবারে কালাে ছায়া নেমে আসে। তার মা ও পরিবারের সদস্যদের বুক ফাটা কান্না যেনাে গ্রামবাসীদেরও কাঁদিয়ে তােলে। রবিবার সকালে শফিকুলের লাশ তার বাড়িতে এসে পৌছালে,স্বজনদের কান্নায় এলাকার মানুষ স্তব্ধ হয়ে পড়ে। পারিবারিক সূত্র জানায়, শফিকুল কারাের সাথে কােন খারাপ ব্যবহার করতাে না। কিন্তু এই নিরীহ মানুষকে কারা এবং কেনই বা হত্যা করলাে?

গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, শফিকুলের লাশ গ্রামে আসার পর পুলিশের একটিদল সেখানে পরিদর্শন করেছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপনার মন্তব্য

Your email address will not be published. Required fields are marked *

আপনার ইমেইল এবং অন্যান্য তথ্য সংরক্ষন করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

স্বপ্ন পূরণের আগেই লাশ হয়ে বাড়ি ফিরলেন প্রবাসী

আপডেট সময় : ০২:১২:৪৪ অপরাহ্ন, রবিবার, ১৬ জুলাই ২০২৩

পৃথিবীর সকল মানুষই স্বপ্ন দেখে ভাল কিছু পাবার জন্য। কিন্তু এ স্বপ্ন কারাের পূরণ হয়। আবার কারাের স্বপ্ন স্বপ্নই রয়েছে যায়। এমন হতভাগা জীবন নিয়ে পৃথিবী থেকে চির বিদায় নিতে হলাে মেহেরপুরের গাংনী উপজেলার ষােলটাকা ইউনিয়নের কাষ্টদহ গ্রামের যুবক শফিকুল ইসলামকে। শফিকুল কাষ্টদহ গ্রামের মৃত আজিজুল ইসলামের ছেলে।

সংসারের স্বচ্ছলতা আর মনে জমে থাকা বড় বড় স্বপ্ন নিয়ে প্রিয় জন্ম ভূমির মায়া ত্যাগ করে কর্মের তাগিদে যৌবন শুরুর দিকে গিয়েছিলেন কাতারে। সেখানে ১২ বছর কর্মজীবন কাটিয়ে স্বজনদের দেখতে বাড়ি আসেন। বাড়ি এসে পরিবারের সুখের আশায় আবারাে তিনি আফ্রিকাতে গিয়েছিলেন। আফ্রিকাতে নাগরিকত্ব পেতে ওই দেশে বিয়ে করেন। এর পর থেকে তার দিন ভাল যাচ্ছিল। কিন্তু ইদানিং স্ত্রীর সাথে তার দ্বন্দ্ব দেখা দেয়। এর পর থেকে শফিকুলকে বিভিন্ন সময়ে জিম্মী করে অর্থ আদায় করা হতো।

পরিবারের লোকজন মুক্তিপণ দেয়ার পর শফিকুলকে দেশে ফিরে আসতে বলে এবং বিয়ে করে সংসার করতে বলতাে তার মা। মায়ের কথা মতে শফিকুল এর বিয়ের জন্য মেয়ে দেখাদেখির কাজও করে আসছিলেন তার গ্রামের বন্ধুরা। শফিকুলের স্বপ্ন ছিল,দেশে বিয়ে করে দেশেই কর্ম করে বাকী জীবনটা সুখে-শান্তিতে কাটাবাে। কিন্তু এ স্বপ্ন যেনাে তার স্বপ্নই রয়েছে গেলাে।

গত সোমবার তার সহ-কর্মীরা আফ্রিকাতে শফিকুলের হাত-পা বাঁধা গলা কাটা লাশ উদ্ধার করেন। সেই সাথে তার সহ-কর্মীরা বিষয়টি বাড়িতে জানান। খবর শুনে তার পরিবারে কালাে ছায়া নেমে আসে। তার মা ও পরিবারের সদস্যদের বুক ফাটা কান্না যেনাে গ্রামবাসীদেরও কাঁদিয়ে তােলে। রবিবার সকালে শফিকুলের লাশ তার বাড়িতে এসে পৌছালে,স্বজনদের কান্নায় এলাকার মানুষ স্তব্ধ হয়ে পড়ে। পারিবারিক সূত্র জানায়, শফিকুল কারাের সাথে কােন খারাপ ব্যবহার করতাে না। কিন্তু এই নিরীহ মানুষকে কারা এবং কেনই বা হত্যা করলাে?

গাংনী থানার ওসি আব্দুর রাজ্জাক জানান, শফিকুলের লাশ গ্রামে আসার পর পুলিশের একটিদল সেখানে পরিদর্শন করেছে।